হুজিবির ৬ জ’ঙ্গির রিমান্ড: তহবিল সংগ্রহে ছি’নতাই ডা’কাতি করত ওরা।

হুজিবির ৬ জ’ঙ্গির রিমান্ড: তহবিল সংগ্রহে ছি’নতাই ডা’কাতি করত ওরা।

রাজধানীর বাড্ডা এলাকা থেকে নি’ষিদ্ধ জ’ঙ্গি সংগঠন হরকাত-উল-জি’হাদ বাংলাদেশের হুজিবি ৬ সদস্যকে গ্রে’ফতার করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিন করে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

এরা তহবিল সংগ্রহের জন্য ছি’নতাই ও ডা’কাতি করত বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। গ্রে’ফতারকৃতরা হল- মো. বিল্লাল হোসেন ২৫, নুর আলম ২৮, মো. রফিকুল ইসলাম ২৯, আবুল মিয়া ৩০, আবদুর রহমান ৩০ এবং আক্তার হোসেন ৩৪।

ঢাকা মহানগর পুলিশের ডিএমপি কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রা’ইম সিটিটিসি ইউনিটের একটি দল শুক্রবার ভোরে বাড্ডার সাতারকুল এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রে’ফতার করেছে।

তাদের কাছ থেকে একটি দুটি মুখোশ, চা’পাতি, তিনটি ছু’রি, একটি খেলনা পি’স্তল এবং ১০০ মিলিগ্রাম ক্লোরোফর্ম উ’দ্ধার করা হয়।পরে তাদেরকে আদালতে হাজির করে ১০ দিন করে রি’মান্ডের আবেদন করে গোয়েন্দা পুলিশ।

শুনানি শেষে ঢাকা মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সত্যব্রত শিকদার তাদের প্রত্যেকের ৫দিন করে রি’মান্ড মঞ্জুর করেন।এদিকে শুক্রবার গু’লিস্তানের মাওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে সিটিটিসি এবং ক্রা’ইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের ক্র্যাব মধ্যে আয়োজিত প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচের মধ্য বিরতিতে এক ব্রিফিংয়ে সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন।

মনিরুল ইসলাম বলেছেন, প্রাথমিক ত’দন্তের সময় গ্রে’ফতারকৃতরা স্বীকার করেছে যে, গত ২১ আগস্ট গ্রে’নেড হা’মলা মামলায় মৃ’ত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আ’সামি উজ্জল ওরফে রতনের নির্দেশনা অনুযায়ী তারা তহবিল সংগ্রহের জন্য ছি’নতাই ও ডা’কাতি করত। তহবিলের টাকা দিয়ে তারা অ’স্ত্র কেনার পরিকল্পনা করেছিল।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, সে অ’স্ত্র উজ্জল এবং সংগঠনের অন্যান্য সদস্যদের কাশিমপুর কা’রাগার থেকে মুক্ত করতে ব্যবহার করবে বলেও তারা স্বীকার করে। গ্রে’ফতারকৃতদের উদ্ধৃতি দিয়ে মনিরুল ইসলাম আরও জানিয়েছেন, তারা উজ্জলের অধীনে গঠিত একটি দলের সদস্য। তাদের পরিকল্পনায় বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও প্রতিষ্ঠানে ভাং’চুর ও ধ্বং’সযজ্ঞ চালানোর কথা ছিল বলে জানা গেছে।

সিটিটিসি প্রধান বলেছেন, ২০১৬ সালে রাজধানীর হলি আর্টিজান বেকারিতে হা’মলার যে সক্ষমতা জ’ঙ্গিদের ছিল, এরপর আমরা দেশব্যাপী অ’ভিযান পরিচালনা করে অনেক জ’ঙ্গি আ’স্তানা ধ্বং’স করে দিয়েছি। গ্রে’ফতার করা হয়েছে অনেককে। এখন আর জ’ঙ্গিদের এ রকম হা’মলা করার সক্ষমতা নেই। হুজি সাংগঠনিকভাবে অতি দু’র্বল হয়ে পড়েছে। তাদের এই ডা’কাতির গ্রুপটির দুই একজন এখনও বাইরে রয়েছে। তাদের গ্রে’ফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি। উল্লেখ্য যে, গত মার্চের শুরুর দিকে, যাত্রাবাড়ী ও রামপুরা এলাকা থেকে হুজিবির আরও ১২ নেতাকে গ্রে’ফতার করা হয়।

Leave a Comment