মোবাইল ফোন ছাত্রছাত্রীদের জন্য এখন চরম বিপর্যয় !

মোবাইল ফোন ছাত্রছাত্রীদের জন্য এখন চরম বিপর্যয় !

অপব্যবহারের কারণে প্রতিনিয়তই মানুষের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে একধরনের ভয় । বিশেষ করে মোবাইল ফোনের অপব্যবহার নিয়ে অভিভাবকেরা চরম উৎকণ্ঠায় আছেন। বিভিন্ন মোবাইল ফোন কোম্পানি লাভবান হওয়ার জন্য লোভনীয় সব অফার দেয়। ফলে শিক্ষার্থীরা এসব সুবিধা ভোগ করতে গিয়ে রাত জেগে কথা বলে এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে যার ফলে তাদের লেখাপড়ার ক্ষতি হচ্ছে ।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে প্রধানত তিন প্রক্রিয়ায় মোবাইলের অপব্যবহারের শিকার হচ্ছে মানুষ। তন্মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে মোবাইল ক্যামেরার মাধ্যমে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে, স্মার্ট ফোন ও মেমোরি কার্ডের মাধ্যমে অশ্লীল ছবি ডাউনলোড ও তা তরুণদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া। একটি চক্র বিষয়টিকে বাণিজ্যিক ফায়দা লুটতে ব্যাপক ব্যবহার শুরু করেছে। তৃতীয়ত, মোবাইলে আলাপচারিতার মাধ্যমে মানুষকে ব্ল্যাকমেইল ও নারীদের উত্ত্যক্তকরণ। সাম্প্রতিক কয়েকটি ঘটনা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হলো।

বাংলাদেশ পুলিশের তথ্য বিভাগের হিসাব অনুযায়ী বিগত ২০১৩ সালে মোবাইলের নেতিবাচক ব্যবহারের ফলে সারা দেশে ৫৫ জন তরুণী আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন। তাদের মধ্যে স্কুল ও কলেজ ছাত্রী, গৃহিণী ও পেশাজীবী নারী রয়েছেন। এ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন থানায় মোবাইলের মাধ্যমে হয়রানিসংক্রান্ত মামলা দায়ের হয়েছে ২০৩টি।

বাংলাদেশের মোবাইল ফোন গ্রাহকসংখ্যার মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলেমেয়ে, যাদের বয়স ১২ থেকে ১৬ বছর। এমনকি মাত্র ১০ বছর বয়সী ছেলেমেয়ের হাতেও এখন মোবাইল ফোন শোভা পাচ্ছে। এ মোবাইল ফোনগুলো আবার মাল্টিমিডিয়া সিস্টেম। অবধারিতভাবে শিকার হচ্ছে অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলেমেয়ে, বিশেষ করে মেয়েরা। অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলেমেয়েরা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করে ভালো না মন্দ কিছু দেখবে ও শিখবে, তা সহজেই অনুধাবন করা যায়। সমাজে অপরাধের ধরন ও মাত্রা সহজে বোঝা যায় ইন্টারনেটের মন্দ দিকটাই এখন বেশি ব্যবহারের কারণে। তাবৎ অশ্নীল, উলঙ্গ, নোংরা ছবি এসব মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটে দেখার ব্যবস্থা রয়েছে। তাই বর্তমানে স্কুল-কলেজগামী মেয়েদের ওপর যৌন হয়রানি ব্যাপক আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

তাই গার্জিয়ানরা অবশ্যই সতর্ক হোন। বাচ্চাদের হাতে মোবাইল ফোন দেয়া থেকে বিরত থাকুন। তাদের বন্ধু বান্ধব সম্পর্কে খোঁজখবর রাখুন। স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলুন। নিয়মিতভাবে স্কুল-কলেজ করছে কিনা খোঁজ নিন।

Leave a Comment